শিরোনাম:
ঢাকা, রবিবার, ২৭ নভেম্বর ২০২২, ১৩ অগ্রহায়ন ১৪২৯

Daily Pokkhokal
রবিবার, ৮ ডিসেম্বর ২০১৯
প্রথম পাতা » রাজনীতি | সম্পাদক বলছি » নতুন বছরে মন্ত্রীসভায় বড় রদবদল-কাজল ফকিরের আগাম বানী
প্রথম পাতা » রাজনীতি | সম্পাদক বলছি » নতুন বছরে মন্ত্রীসভায় বড় রদবদল-কাজল ফকিরের আগাম বানী
৪৬৭ বার পঠিত
রবিবার, ৮ ডিসেম্বর ২০১৯
Decrease Font Size Increase Font Size Email this Article Print Friendly Version

নতুন বছরে মন্ত্রীসভায় বড় রদবদল-কাজল ফকিরের আগাম বানী

নতুন বছরে মন্ত্রীসভায় বড় রদবদল-কাজল ফকিরের আগাম বানী ---

পক্ষকাল খবর -আওয়ামী লীগ সরকারের এবারের মেয়াদে বছর পার না হতেই মন্ত্রিসভা সম্প্রসারণ ও রদবদলের ব্যাপক গুঞ্জন শোনা যাচ্ছে। ২০ ডিসেম্বর আওয়ামী লীগের জাতীয় সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে।
এর পর অর্থাৎ ইংরেজি নতুন বছরের প্রথম মাসে মন্ত্রিপরিষদে পরিবর্তন আসছে। কারণ মন্ত্রিসভা সম্প্রসারণের ক্ষেত্রে আওয়ামী লীগের আসন্ন সম্মেলন এবং দল ও সরকারকে পৃথক রাখার বিষয়টিকে গুরুত্ব দেওয়া হবে। সরকারের উচ্চপর্যায়ের একাধিক সূত্রে এ তথ্য পাওয়া গেছে।
সরকারের নির্ভরযোগ্য সূত্রের খবর, কয়েকজন সিনিয়র সাবেক মন্ত্রীকে মন্ত্রিসভায় অন্তর্ভুক্ত করার সমূহ সম্ভাবনা রয়েছে। বিশেষ করে সম্প্রতি কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রণালয়ের ব্যর্থতায় সমালোচনার কারণে বিব্রত সরকার। এ জন্য কয়েকজন মন্ত্রীকে গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রণালয় থেকে সরিয়ে অন্য মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব দেওয়া হতে পারে।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরবলেন, দলের জাতীয় সম্মেলনের আগে মন্ত্রিসভায় রদবদল কিংবা সম্প্রসারণে হাত দেবেন না প্রধানমন্ত্রী। যা হওয়ার সম্মেলনের পর হবে। মন্ত্রিসভায় পরিবর্তনের ইঙ্গিত দিয়ে ওবায়দুল কাদের গত বুধবার বলেন, প্রধানমন্ত্রী চাইলে মন্ত্রিসভায় পরিবর্তন আসতেও পারে।
ব্যর্থতার দায়ে কেউ মন্ত্রিসভা থেকে বাদ পড়তে পারেন কিনা- এমন প্রশ্নে ওবায়দুল কাদের বলেন, বাদ পড়া, নতুন যুক্ত হওয়া কিংবা পদোন্নতির বিষয়টি একমাত্র প্রধানমন্ত্রীই জানেন। সূত্রমতে, গত এক বছরের মূল্যায়নে মন্ত্রিসভার কয়েকজন মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রীর মন্ত্রণালয় পরিচালনায় দুর্বলতার বিষয়টি সরকারের সর্বোচ্চ পর্যায়ে দৃশ্যমান হয়েছে। পেঁয়াজসহ নিত্যপণ্যের বাজারে অস্থিরতা নিয়ে আওয়ামী লীগের ভেতরেও সমালোচনার ঝড় বইছে। রেল মন্ত্রণালয়েও কাজের সমন্বয়হীনতা রয়েছে বলে মূল্যায়নে উঠে এসেছে। এ ছাড়া গত এক বছরে রোহিঙ্গা ইস্যুসহ কয়েকটি বিষয়ে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের পদক্ষেপ কাজে আসেনি। চালের দাম বৃদ্ধি ও এর নিয়ন্ত্রণে খাদ্য মন্ত্রণালয় ব্যর্থ হয়েছে।
সূত্রের খবর, চলতি মাসে অনুষ্ঠেয় আওয়ামী লীগের সম্মেলন মাথায় রেখে মন্ত্রিসভার সম্প্রসারণ ও রদবদলের বিষয়টি নিয়ে চিন্তা-ভাবনা চলছে। দলের গুরুত্বপূর্ণ পদে যারা থাকবেন, তাদের মন্ত্রিসভার বাইরে রাখতে চাইছে সরকার।
রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা সরকারের এক বছরে মন্ত্রণালয় পরিচালনায় নানা অব্যবস্থাপনা ও অদক্ষতার কথা বলে আসছিলেন। অনেকে বর্তমান মন্ত্রিসভাকে অনভিজ্ঞ বলেও মন্তব্য করেছেন। বিশেষ করে, কয়েকজন জ্যেষ্ঠ নেতাকে মন্ত্রী না করায় আওয়ামী লীগ ও এর শরিক দলগুলোর ভেতরেই নানা সমালোচনা হচ্ছে। এ ছাড়া ১৪ দলের শরিকদের মধ্যে মন্ত্রিসভায় অন্তর্ভুক্তি নিয়েও অসন্তোষ রয়েছে।
রাজনৈতিক পর্যবেক্ষক মহলের মতে, গত এক বছর আওয়ামী লীগ সরকার ভালো সময় পার করেনি। বিশেষ করে, ক্যাসিনো কেলেঙ্কারির সঙ্গে সরকার সংশ্লিষ্টদের সম্পৃক্ততা, পেঁয়াজের দামে রেকর্ড, শেয়ারবাজারে ধস, গণপিটুনিতে মানুষ হত্যা, রিফাত, নুসরাত ও বুয়েটে আবরার ফাহাদ হত্যার ঘটনায় সরকার বেশ বিব্রতকর অবস্থায় পড়ে।
কয়েকজন প্রভাবশালী মন্ত্রী জানান, সরকার গঠনের এক বছর পূর্তি হবে আগামী ৭ জানুয়ারি। মন্ত্রিসভার সদস্যদের গত বছরের ‘পারফরম্যান্স’ প্রধানমন্ত্রীর কাছে আছে। যারা ইতোমধ্যে জনগুরুত্বপূর্ণ ইস্যুতে অযোগ্যতার প্রমাণ দিয়েছে তাদের হয়তো কম গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রণালয়ে বদলি করা হবে। আর পারফরম্যান্সের ভিত্তিতে দু-একজন উপমন্ত্রী থেকে প্রতিমন্ত্রী হবেন। সরকারের ভাবমূর্তি ফেরাতে সাবেক দু-একজন মন্ত্রীকে পুনরায় মন্ত্রী করার বিষয়েও ইঙ্গিত দিয়েছেন তারা।
সূত্র জানায়, বর্তমান মন্ত্রিপরিষদের একজন প্রতিমন্ত্রী পদোন্নতি পেয়ে মন্ত্রী এবং দুজন উপমন্ত্রী থেকে প্রতিমন্ত্রী হচ্ছেন। আর রদবদলের অংশ হিসেবে কৃষিমন্ত্রী ড. আবদুর রাজ্জাককে খাদ্য মন্ত্রণালয়ে নিয়োগ দেওয়া হতে পারে। সে ক্ষেত্রে বর্তমান খাদ্যমন্ত্রী সাধনচন্দ্র মজুমদার পেতে পারেন অন্য কোনো মন্ত্রণালয়। বাণিজ্যমন্ত্রীকেও সরিয়ে দেওয়ার জোর গুঞ্জন রয়েছে। গুঞ্জন রয়েছে, জানুয়ারিতে মন্ত্রিসভায় রদবদল করে টিপু মুনশিকে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় থেকে সরিয়ে সেখানে সাবেক বাণিজ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের উপদেষ্টাম-লীর সদস্য তোফায়েল আহমেদকে দায়িত্ব দেওয়া হতে পারে। তিনি বর্তমানে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি। তোফায়েলের অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে বাজার স্থিতিশীল করতে চান প্রধানমন্ত্রী।



আর্কাইভ

পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)